বাহারি দই বেগুন

Spread the love

বাঙালি মানে যেমন ভাতে-মাছে ভুরিভোজ, তেমনই নিরামিষ পদেও সে আসর জমাতে ওস্তাদ। বর্ষায় খিচুড়ি, শীতে কচুরি তো আছেই। এ ছাড়াও বাঙালির পাতে রোজই এমন কিছু নিরামিষ পদ পড়ে, যা স্বাদে আমিষকেও টেক্কা দিতে পারে। বাজার থেকে গৃহস্থ ঘরে প্রায়ই আসে যে ধরনের সব্জি, তার মধ্যে অন্যতম বেগুন।

বেগুন ভাজা, বেগুনের ভর্তা, ঝোল-ঝোলে বেগুনের তরকারি, বসন্তে নিম-বেগুন— বাঙালি এই সব্জি দিয়েও রকমারি পদ বানাতে পছন্দ করে। বেগুন দিয়ে তৈরি এমনই এক নিরামিষ পদ ‘বাহারি দই বেগুন’। গরম গরম ভাত হোক বা রুটি— সবের সঙ্গে এই পদ ভাল লাগে।

এই পদের সবকটি উপাদানই সহজলভ্য। উপাদান ও পদ্ধতির হালহদিশ রইল।

উপকরণ :-

বেগুন ২৫০গ্রাম মাঝারি মাপের লম্বা লম্বা,
টক দই ১ কাপ,
আদা  পেস্ট ১ চামচ,
সরষে ১ চামচ,
শুকনো লঙ্কা  ২ টি,
তেজপাতা ১ টি,
লবণ পরিমাণ মতো,
চিনি স্বাদ অনুসারে,

হিং (নিরামিষ রান্নায় এর অবদান আমরা সকলেই জানি।)

ধনে গুঁড়ো ১ চামচ,
জিরেগুঁড়ো ১ চামচ,
লঙ্কা গুঁড়ো ১ চামচ,
কাশ্মীরি লংকার গুঁড়ো (রং এর জন্য ব্যবহার করা হয়, বাড়িতে না থাকলে প্রয়োজনে এটি বাদ দিতে পারেন)
টমেটো পিউরি অথবা টমেটো কেচাপ

সরষের তেল

প্রণালী:-

প্রথমে গোটা বেগুনটিকে  বোঁটা ছাড়িয়ে লম্বা লম্বা করে কেটে নিয়ে তাতে সামান্য নুন, হলুদ, এবং চিনি মাখিয়ে পাঁচ থেকে দশ মিনিটের জন্য ঢেকে রাখুন।

এ বার একটি পাত্রে টক দই ঢেলে তাতে হলুদ, ধনে গুঁড়ো, কাশ্মিরী লংকার গুঁড়ো এবং স্বাদ মতো নুন ও চিনি দিয়ে ভাল করে ফেটিয়ে নিন।

এর পর একটি কড়াইয়ে দু’চামচ তেল দিয়ে নিন। তেল গরম হয়ে গেলে নুন-হলুদ মাখানো বেগুনগুলি কড়াইতে ছেড়ে দিন। অল্প ভাজা ভাজা হয়ে এলে একটি পাত্রে তুলে রাখুন

এবং ওই একই কড়াইয়ে আরও এক চামচ তেল দিয়ে দুটি শুকনো লঙ্কা, একটি তেজপাতা, সরষে ফোড়ন এবং অল্প হিং, দিন। তারপর একে একে আদা বাটা, লঙ্কার গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো, স্বাদমত নুন দিয়ে হালকা নেড়েচেড়ে নিন। এরপর টমেটো পিউরি অথবা টমেটো কেচাপ কড়াইতে দিয়ে মশলা গুলি ভালো করে কষাতে থাকুন।

অল্প তেল ছেড়ে এলে সব শেষে ফেটিয়ে রাখা টক দই দিয়ে অল্প কষিয়ে পাত্রে গরম করে রাখা এক কাপ জল ঢেলে মশলা সমেত ফুটিয়ে নিন। সমস্ত মশলা দেয়া জল শুকিয়ে গ্রেভি ঘন হয়ে এলে সামান্য,  বেগুনগুলো ছেড়ে দিন এবং ঢেকে সেদ্ধ হতে দিন। নামানোর আগে উপর থেকে টক দই এবং ধনেপাতা কুঁচি দিয়ে গরম গরম রুটি বা স্টিমড রাইসের সাথে পরিবেশন করুন। 
বিঃদ্রঃ কেউ কেউ এই রান্নায় ভাজা মশলার প্রয়োগ করে থাকেন সেক্ষেত্রে রান্নাটি নামানোর আগে ওপর থেকে অল্প ছড়িয়ে দেবেন।
ধন্যবাদ।।

————–দেবাঞ্জলি বিশ্বাস

94% LikesVS
6% Dislikes

Leave a Comment

error: Content is protected !!